জীবনের প্রথম যৌনতা


আমি সিব্বির । আমার বাড়ি নেত্রকোনায় । এখন পড়ছি অনার্স ৩য় বর্ষে । আমি আজ আমার জীবনের প্রথম যৌনতার গল্প বলব ।

তখন আমি সবে এইচ এস সি পরীক্ষা দিয়েছি । হাতে বিরাট অবসর । তাই ভাবলাম খুলনা ঘুরতে যাব । ওখানে আমার বড় খালা থাকে । খালার বড় ছেলে দিপু ভাইয়া আমার চাইতে বছর পাঁচেক বড় । খুলনা ভার্সিটিতে মাস্টার্স করছে তখন । তবে ওর সাথে আমার বোঝাপড়াটাও ভালো ছিল ।
আমরা দুজনেই বন্ধুর মত ছিলাম ।
যাই হোক । বাড়ি থেকে রাওনা হয়ে খুলনা পৌঁছলাম । এতদিন অনেকের কাছে খুলনা নগরীর প্রশংসা শুনেছি । আজ নিজের চোখে দেখলাম । আসলেই শান্ত আর ছিমছাম একটা নগরী খুলনা । বিশেষ করে খুলনা ব্রিজটা আমার দারুন লাগলো ।

খালামনি আমায় দেখে অনেক খুশি । তার চাইতেই বেশি খুশি আমার খালাত ভাই দিপু ভাই ।
দিপু ভাই আমাকে দেখেই বলে , তুইত বেশ বড় হয়ে গেছিস ?
আমি বললাম, ভাইয়া । আমি কি সারাজিবন ছোটো থাকব ।
বলে রাখা ভালো যে আমি জিম করি নিয়মিত। উচ্চতা ৫ ফুট ১১ ইঞ্চি । চওড়া বুক আর প্রশস্ত কাঁধ । মুখে আমার খোঁচা খোঁচা দাড়ি । যে কোন মেয়েই আমাকে দেখে পটে যায় । স্কুল লাইফেই অনেক বান্ধবী ছিল । কলেজে উঠে তা আরও বেড়েছে । তবে কোন মেয়ের সাথে সেক্স এর কোন অভিজ্ঞতা আমার ছিল না ।
সারাদিনের জার্নিতে আমি অনেক ক্লান্ত । তাই খাওয়াদাওয়ার পর টের পেলাম আমার দু চোখ জুড়ে ঘুম আসছে ।
রাতে দিপু ভাইয়ার সাথে ঘুমাব । তাই দিপু ভাইয়ার রুমে চলে গেলাম । দিপু ভাই ল্যাপটপে কাজ করছিল ।
আমি বললাম, ভাইয়া আমি ঘুমিয়ে পড়ি ।
দিপু ভাই বলে, ওকে । তুই ঘুমিয়ে যা । আমি পরে ঘুমাব ।
আমি বালিসে মাথা দিতেই নাক ডাকতে লাগলাম । কখন যে ঘুমিয়েছি টের পাই নি ।
রাতের বেলা আচমকা ঘুম ভেঙ্গে গেল আমার । আমি বুঝতে পারছিলাম আমার লুঙ্গির উপর দিপু ভাই এর হাত । ঠিক আমার পেনিসের উপর । আমি ভাবলাম দিপু ভাই ঘুমের মাঝে হাত দিয়েছেন । আমি হাতটা আলতো করে সরিয়ে দিলাম ।
একটু পর আবার ঘুম ভেঙ্গে গেল । আমার শরীরে কেও হাত রাখলে আমি ঘুমাতে পারি না ।
এবারো খেয়াল করলাম দিপু ভাই আমার পেনিসের উপর হাত বুলাচ্ছেন ।
আমি বুঝতে পারছিলাম না এটা কি ইচ্ছাকৃত নাকি ঘুমের ঘোরে । আমি আবারও চুপ করে তার হাত সরিয়ে দিলাম ।
এবার আরও ভয়ংকর অবস্থা । আমি খেয়াল করলাম আমার লুঙ্গি হাঁটু পর্যন্ত নামানো । আর কেউ আমার পেনিস চুষছে । আমি এবার ভয় পেয়ে গেলাম ।
তাড়াতাড়ি পেনিসের জায়গায় হাত দিতেই বুঝলাম ওটা দিপু ভাই এর মাথা ।
দিপু ভাই চুপ করে রইল ।
আমি বললাম, ভাইয়া তুমি এটা কি করলে ?
দিপু ভাই বলে, কেন তোর কি খারাপ লাগছে ?
আমি কিছু বলি না ।
সত্যি কথা হল আমার ভীষণ ভালো লাগছিলো । কারণ যারা মুখে পেনিস ঢুকিয়েছেন তারা সবাই জানেন এতে কেমন আরাম ।
দিপু ভাই আমার পড়া লুঙ্গি একটানে গোড়ালি পর্যন্ত নামিয়ে দিলেন ।
আমার পেনিসের মাথা ভীষণভাবে চাঁটতে লাগলেন আর আমার পেনিসটা হাত দিয়ে ধরে উপর নিচ করতে লাগলো।
আমি পাগল হয়ে যাচ্ছিলাম । বললাম, ভাইয়া আরও চাট । আমার খুব ভালো লাগছিল কারণ জীবনে এই প্রথম অন্য কোনো মানুষের হাত আমার বাড়ার মধ্যে পড়ল । সবকিছুকে স্বপ্নের মত লাগছিল। ভাইয়ার ঠোঁটের ছোঁয়া পেয়ে আমার বাড়াটা যেন আরও শক্তি পেল ।
দিপু ভাই বাড়া চুষা বাদ দিয়ে ঘরের ডিম লাইটের আলোয় আমার বাড়ার দিকে তাকিয়ে রইল ।
আমি জিগ্গেস করলাম, ভাইয়া । কি ব্যাপার । ওভাবে তাকিয়ে আছো কেন ?
দিপু ভাই বলল, অবাক হচ্ছি । তোর এতো বড় পেনিস দেখে ।
আমি বললাম, ভাইয়া তুমি কি গে নাকি ?
দিপু ভাই বলল, আমি বাইসেক্সুয়াল ।(দিপু ভাই আমার বন্ধুর মত ছিল তাই সেক্স নিয়ে অনেক কথাই বলতাম উনার সাথে । )
আমি বললাম, এমন বলছ কেন? আমারটা কি তোমারটার চেয়েও বড়ো নাকি?
দিপু ভাই তার লুঙ্গি খুলে দিল । আমি দেখলাম আসলেই আমারটা উনারতার তুলনায় অনেক বড় ।
দিপু ভাই বলল, তোর বাড়া কম করে হলেও সাড়ে সাত ইঞ্চি হবে ।
আমি বললাম, আমি কখনও মাপি নাই ।
ভাইয়া বলে, আমার আন্দাজ আসে হাতের ।

দিপু ভাই এবার আলতো করে তার জিভ দিয়ে আমার বাড়ার মাথাটা স্পর্শ করলো । আমি শিউরে উঠি ।
ভাইয়া আস্তে আস্তে বাড়ার মুন্ডিটা মুখে ঢুকিয়ে চুষতে শুরু করে ।
আমার যে কি ভালো লাগছিল তখন তা বলে বোঝানো যাবে না।
আমি দুই হাত দিয়ে ভাইয়ার মাথাটা আমার বাড়ার উপর চাপ দিতে লাগলাম যার ফলে বাড়ার প্রায় অর্ধেক অংশ ভাইয়ার মুখের ভিতর ঢুকিয়ে দেই ।
ভাইয়াকে জিজ্ঞাসা করলাম, বাড়া চুষতে খারাপ লাগে না ?
দিপু ভাই বলে, না । ভাল লাগে ।
আমি বললাম পুরোটা পারলে মুখের ভিতরে ঢুকাও ।
আমি তার মুখের ভিতর ঠাপ মারতে লাগলাম ।
এক একটা ঠাপে আমার বাড়ার মুন্দিটা তার কন্ঠ নালিতে গিয়ে ধাক্কা মারছে ।
দিপু ভাইয়েরতো তখন করুন অবস্থা । তার মুখ দিয়ে বেয়ে লালা পরছিল আর চোখ দিয়ে পানি ।
আমি তখন দিপু ভাইয়ের মাথা ধরে ঠাপাতে লাগলাম ।

অনেকক্ষণ ঠাপানোর পর ভাইয়া আমাকে ঠেলে দিয়ে বললো আর পারবো না ।
এবার আমার পাছার মধ্যে তোর বাড়াটা ঢুকা ।
আমি বলি, এসব কি বল ? তুমি এটা নিতে পারবে ? ব্যথা পাবে না ?
দিপু ভাই বলে , আমি পারব ।
দিপু ভাই বিছানা থেকে নেমে তার ড্রেসিং টেবিলের সামনে থেকে জনসন লশন নিয়ে আসল ।
এবার তার পাছায় বেশ খানিকটা মাখল । আমার বাড়ার মাথাটাতে কিছুটা লাগাল ।
আমাকে বলল, খাটের পাশে নাম ।
আমি খাটের পাশে দাঁড়ালাম ।
আমার বাড়া তখন দুলছে ।
দিপু ভাই ডগি স্টাইলে তার পাছা আমার দিকে মুখ করে রইল ।
দিপু ভাই তার আঙ্গুল পাছার ফুঁটাতে ঢুকাতে আর বের করতে লাগলো ।
এসব দেখে আমার মাথা আরও গরম হয়ে যাচ্ছিল ।
দিপু ভাই তার পাছা দুলিয়ে বলে । একটু দাড়া । আমি আঙ্গুল ঢুকিয়ে একটু ইজি করে নিই ।
আমি বললাম ঠিক আছে । আমি দেখলাম দিপু ভাই তার হাতের তিনটা আঙ্গুল ধুকাচ্ছে ।
আমি আমার বাড়া হাত দিয়ে খেঁচতে লাগলাম ।
দিপু ভাই বলে, এবার ঢুকা ।
আমার শরীরটা তখন শিরশির করছিল । জীবনের প্রথম সেক্স । তাও আবার আমার বড়ো খালাত ভাইয়ের সাথে ।
মনে মনে ভয় পাচ্ছিলাম ।
দিপু ভাই বলে, কি হল হাবার মত দাঁড়িয়ে আছিস কেন ? জলদি ঢোকা ।
আমি এবার আমার বিশালবাড়াটা ভাইয়ার পাছার ফুটাতে সেট করে মারলাম এক ধাক্কা ।
দিপু ভাইয়ার পাছার ফুটাটা ছিল অনেক টাইট যার ফলে আমার পুরো বাড়াটা ঢুকেনি।
তবে আমার বাড়ার অর্ধেকটা ঢুকেছে ।
ভাইয়া আহ করে আওয়াজ করে উঠলো ।
বুঝলাম ভাইয়া ব্যথা পাইসে ।
আমি তাই আস্তে আস্তে বাড়া অর্ধেকটা ঢুকানো অবস্থায় কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে রইলাম ।
ভাইয়া বলল, চুদতেও পারিস না তুই । এতো জোরে কেউ ঢুকায় ।
ভাইয়া বলল, এখন হালকা হালকা করে থাপ দে ।
আমি তাই করতে লাগলাম । ভাইয়ার পাছার ভেতরটা অনেক গরম ।
অনেক আরাম লাগছিলো ।
ভাইয়া বলল, এবার জোরে ঠাপা ।
আমি এবার বাড়াটা বের করে একটা বড় নিশ্বাস নিয়ে সজোরে মারলাম আরেক একটা রাম ঠাপ ।
দিলাম ভাইয়ার পাছার ভিতরে ।
ঠাপানো শুরু করলাম পাছার ভিতর ।
ভাইয়া শুধু আঃ আহঃ উহঃ উহঃ করে শব্দ করছে আর বলছে ভাই আরো জোরে দে ।
আরো জোড়ে জোড়ে চোদ ।
আমিতো ভাইয়ার মুখের কথা শুনে হতভম্ব ।
আমি বলি, দিপু ভাই তুমি এইসব কি বলছো ?
ভাইয়া বলে, চোদা চুদির সময় এই রকম কথা না বললে চোদার মজাই পাওয়া যায় না ।
আমি সমানে থাপাতে লাগলাম ।
আমি সমান তালে ভাইয়াকে ঠাপিয়ে যাচ্ছিলাম ।
দুই হাত দিয়ে ভাইয়ার পাছাটাকে দলাই মলাই চটকাচ্ছিলাম ।

প্রায় ১৫-২০ মিনিটের মত ঠাপানর পর ভাইয়া বলল, ওই আমার পা দুইটা কাঁধে নিয়ে চুদ ।
আমি বললাম, ওকে ।
আমি আমার বাড়াটা বের করলাম পাছা থেকে ।
ভাইয়া তার কোমরের নীচে একটা বালিশ দিল ।
আমি তখনও খাটের বাইরে দাঁড়িয়ে আছি ।
ভাইয়া আমাকে বলে, আমার পা দুটা কাঁধে নে ।
আমি তার কথামত তার পা আমার কাঁধে নিলাম । এবার ভাইয়া বলল, চুদা স্টার্ট কর ।
আমি আবার শুরু করলাম । আমার সামনে তখন ভাইয়ার পেনিস দুলছে থাপের তালে তালে ।
সে এক অদ্ভুত দৃশ্য ।
ভাইয়া তার নিজের পেনিস খেচেই যাচ্ছে । আমাকে বলছে, আরও জোরে থাপা ।
আমি ঠাপ মারছিলাম আর ভাইয়ার বাড়া খেচা দেখছিলাম ।
অনেকক্ষণ ঠাপানোর পর ভাইয়াকে বললাম আমার এখন বের হবে । কি করব ?
ভিতরে ফেলবো নাকি বাইরে ফেলবো, কোনটা করবো ?
ভাইয়া বলল ভিতরে ফেল ।
ততক্ষণে ভাইয়া কেপে উঠেছে । তার বাড়া থেকে মাল ছিটকে ছিটকে তার বুকে পেটে পড়ল ।
আমি অবাক হয়ে দেখলাম ।
এবার আমি কয়েকটা রাম ঠাপ দিয়ে আমার বাড়াটা একেবার ভাইয়ার পাছায় ঠেসে ধরলাম ।
হড় হড় করে সব গরম বীর্য ভাইয়ার পাছার ভিতরে ঢেলে দিলাম।
আমার মনে হচ্ছিল আমার শরীর অবশ হয়ে যাচ্ছে ।
বীর্যের শেষ বিন্দু বের হওয়া পর্যন্ত আমার বাড়াটা পাছার ভেতর ঢুকিয়ে রাখলাম ।
যখন বুঝতে পারলাম বাড়াটা নিস্তেজ হয়ে আসছে তখন বাড়াটা বের করে ভাইয়ার বুকে শুয়ে পরলাম ।

দিপু ভাই আমার মাথায় হাত বোলাতে বোলাতে বলল, কিরে অনেক কষ্ট হল?
আমি বললাম,ভাইয়া । তুমি আমার এই কথাটা বিশ্বাস করবে কি না আমি জানি না । আজ এই প্রথম সেক্স করলাম আমি । আমার কি যে অসম্ভব ভালো লাগলো ! আমি তোমাকে ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না ।
দিপু ভাই হাসল আর বলল, হুম । বুঝলাম ।
ওই দিনের পর থেকে আমি যতদিন খুলনা ছিলাম প্রতিদিনই আমাদের চোদা-চুদি চলত ।
এর কিছুদিন পর দিপু ভাইয়া দেশের বাহিরে চলে যায় ।
ভাইয়া এখনও দেশে আসলে আমার সাথে সেক্স করে ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s