লেপের নিচে হাতাহাতি

এই এলাকায় এসেছি বেশ কয়েক মাস হল। ব্যাংকে জয়েন করার পর এখানেই আমার প্রথম পোস্টিং দিল। সিলেটের একটা উপজেলা। এমনই খারাপ জায়গা যে মাঝে মাঝে মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্কও থাকে না। সারা জীবন ঢাকায় মানুষ হলাম আর এখন এসে পড়লাম এই অজ পাড়া গাঁ এ । সন্ধ্যার পর তেমন কাজ থাকে না। তাই বসে বসে ল্যাপটপে মুভি দেখি । আমি যে এলাকায় থাকি সেখানকার মানুষগুলোর মাঝে শিক্ষার আলো এখনও কম । বেশির ভাগ মানুষই কৃষিকাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকে। আমি যে কারও সাথে একটু আলাপ আলোচনা করব সে সুযোগটুকুও পাই না । যে বাসায় ভাড়া থাকি সে বাসার মালিকের দুই সন্তান । একটা ছেলে আর একটা মেয়ে । ছেলেটার বয়স ৩০ এর মত । বাবার সাথে ব্যবসা বানিজ্য করে । প্রায়ই রাত করে বাড়ি ফেরে তাই আমার সাথে দেখা খুব বেশি হয় না। আমি এই কয়েক মাসে তার মুখটাও দেখি নি । সেদিন বৃহস্পতিবার রাত । অফিস থেকে ফিরে শুয়ে আছি । এদিকে ঠান্ডাটা অনেক বেশি । তাই সন্ধ্যার পর কম বের হই। রাত প্রায় ৮ টার দিকে খাওয়া দাওয়া করে বিছানায় শুয়ে শুয়ে ল্যাপটপে ইন্ডিয়ান বাংলা মুভি দেখছিলাম দেব এর । হঠাৎ দরজায় টক টক শব্দ । সাথে সাথে কেউ একজন গলা খাকারি দিয়ে বলল , বাইজান কি গুমায়া পরছুইন ? আমি ধর মর করে লেপ ছেড়ে উঠে পরনের লুঙ্গি ঠিক করলাম । শীতের দিনে লেপের ভেতর পরনের লুঙ্গি টিক থাকে না আমার । দরজা খুলতেই দেখলাম একটা লোক লুঙ্গি পরা। গায়ে চাদর, গলায় মাফলার । আমাকে সালাম দিয়ে বলল, বাইজান আমি বাড়িওয়ালার চেলে। আপনার সাতে কতা অয় নাই । ব্যবসা পাতি লইয়া বিজি থাকি, বুজেনই তো। আমি বললাম, ভেতরে আসেন । চেয়ার টেনে বসতে দিলাম। তা, আমাগো এলাকা কেমন লাগতাছে ? বালানি? আমি হেসে বললাম, এই তো । তবে ঢাকায় থেকে অভ্যাস । বুঝেনই তো । হুম , তাতো একটু পবলেম অবেই । কি আর করবেন? মানায় নিতে অইব । তা আপনার নামটা জানা হল না। আমি সজল রায়হান । আমার বাপে আমার নাম দিছে জলিল খান । হা হা হা । শাকিব খানের সাথে চেহাড়ার মিল থাকায় এলাকার পুলাপাইন আমারে শাকিব খান কইয়াও ডাহে। আমি এবার নড়েচড়ে বসে জলিলের দিকে ভালো করে তাকালাম । মাফলার আর চাদরের ফাঁক দিয়ে মুখের আদল বোঝার চেষ্টা করলাম । দেখতে পুরোপরি শাকিব খান না হলেও একটা আলাদা পুরুষালি সৌন্দর্য আছে ওর মুখে। মুখে খোঁচা খোঁচা দাড়ি । তামাটে রং মুখের । ল্যাপটপে দেবের ছবি তখন পজে দেওয়া । জলিল এর নজর হঠাৎ ল্যাপটপের দিকে গেল। বাইজান কি দেবের বক্ত নি ? আমি হাসলাম, আরে নাহ, এমনিই দেখছি । সময় কাটানো আর কি ! জলিল আগ্রহ নিয়ে বলল, মুবিটা পরথম থেইকা ছালান না বাইজান । দেবের মুবি আমি কুবই বালা ফাই । আমি বিরক্তি নিয়ে মুভিটা প্রথম থেকে প্লে করলাম । জলিল একমনে ল্যাপটপ স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে আছে। আমি দরজাটা লাগিয়ে দিয়ে বিছানায় গিয়ে বসলাম। বেচারা শীতের ভেতর হালকা কাঁপছিল । আমি একটু দরদ দেখিয়ে বললাম আপনার সমস্যা হলে বিছানায় লেপের নিচে এসে দেখেতে পারেন । জলিল দুই পায়ে খাড়া। কথা শুনেই এক লাফে লেপের নিচে শুয়ে মুভি দেখতে শুরু করল। আমি মুভি দেখি না । আড়চোখে জলিল কে দেখি । আমি একজন সমকামি পুরুষ। ঢাকা থাকতে প্রতি সপ্তাহেই কারো না কারো সাথে সেক্স করতাম। তা ফেসবুকের বদৌলতে ভালই চলত। কিন্তু এখানে আসার পর যে কি খরা যাচ্ছিল। ঢাকায় অনেককে অ্যাভয়েড করতাম। এখন মনে মনে আফসোস হয় । শালা এখানে তো কিছুই পাই না । মনের ভেতর একটা দুষ্ট বুদ্ধি চাপল। জলিল রে একটু বাজিয়ে দেখি। ঝড়ে বক মরতেও পারে। কে জানে। ঢাকার গে রা মাঝে মাঝে একটা কথা বলত জোকস করে , যেখানে দেখিবে লুঙ্গি ভাই, উড়াইয়া দেখো তাই, পাইলেও পাইতে পারো একটা সোনা দুইটা দানা । জলিল নায়ক নায়িকার বৃষ্টি ভেজা গান দেখছে একমনে । আমি জলিল ভাইকে বলল, ভাই, কেমন লাগছে নায়িকার শরীরটা । জলিল ভাই একধাপ এগিয়ে বলল, জটিল মাল বাইজান, দেখলেই তো শরীর গরম অইয়া যায়। আমি বললাম. আমার কাছে শরীর গরম করার আরও স্পেশাল জিনিস আছে । দেখবেন নাকি ? তাই নাকি ? ওরে বাই কিতা কন । চাড়েন চাড়েন . . .। আমি ল্যাপটপের ভলিউম একটু কমিয়ে দিয়ে নারী পুরুষের ব্লু ফ্লিম ছেড়ে দিলাম । মনে মনে বললাম, জলিল বাবা আজ তোমার দৌড় দেখব । স্ক্রিনে তখন নায়কের ধোন চুষছে একটা শেতাঙ্গ মেয়ে। জলিল একদৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। আমি বুঝতে পারি লেপের ভিতর ওর বাম হাত ওর লুঙ্গির ওপর নাড়াচাড়া করছে। একটু পর মেয়েটার যোনিতে পুরুষাঙ্গ ঢোকাতে শুরু করল নায়ক । নায়িকা তো চিৎকার করতে করতে শেষ । এদিকে জলিল বাবারও অবস্থা শেষ তা টের পাচ্ছিলাম । লেপের ভেতর হাতের নাড়াচাড়া দেখে। এটা শেষ হবার পর আরেকটা থ্রি এক্স চালু করলাম । এটাতে ডাইরেক্ট চোদন শুরু হল। জলিল বলল, বাইজান খালি চুদনের চাইতে দোন চুসা বালা লাগে বেশি । ওই রহম কিছু দেন । আমি খুঁজে খুঁজে একটা ছাড়লাম । একটা অল্পবয়সী মেয়ে একটা ৩০-৪০ বছর বয়সী লোকের ৮ ইঞ্চি বাড়া চুষতে শুরু করেছ্ ে। জলিল এখন তার বাম হাতে লুঙ্গির নিচে ডলা শুরু করল। আমি বুঝলাম এইতো সুযোগ । আমি জলিলের বাম পাশে বসা। লেপের নিচে ধীরে ধীরে আমার ডান হাতটা জলিলের দিকে বাড়াতে থাকলাম । লুুঙ্গির উপর দিয়ে খুঁজতে হল না ধোন বাবাজিকে। ওটার ওপর জলিলের বাম হাত ছিল। আমি বাম হাত সরিয়ে দিয়ে আমার ডান হাত ধোনের উপর রেখে বললাম, বাহ ভালোই কলা বানাইছেন আপনি। জলিল লজ্জা পাইল। আরে লজ্জার কি আছে ? আমি লুঙ্গির ওপর দিয়েই ধোনটা টিপতে লাগলাম । লুঙ্গির ওপর দিয়ে ধোন ধরাটা অনেক মজার সেটা যারা লুঙ্গির ওপর দিয়ে ধোন টিপেছের তারাই ভালো জানেন । জলিলের নিঃশ্বাস ভারি হয়ে আসল। আমি ধোনটাকে ডান হাতের মুঠোয় নিযে আলতো করে আঙ্গুল বুলাচ্ছি। মনে হচ্ছে একটা সাগর কলা । এত বিশাল সাইজ এর ধোন আমি খুব কম দেখেছি । আমি এবার জলিলে এর লুঙ্গির গিট আলগা করে দিলাম । হায় হায় ! পুরা জঙ্গল। কয় দিন বাল কাটে না কে জানে। জলিল একটু লজ্জা পেল। আমি জলিলের এর বাল গুলো মুঠ করে ধরলাম। বাল মাঝে মাঝে টানছি। জলিল আহ করে উঠল। আমি উপরের লেপটা একটানে সরিয়ে দিলাম। এমন মোটা আর ল¯^া ধোন দেখার লোভ সামলাতে পারলাম না। ওহ আল্লাহ ! কালো কুচকুচে ধোনটার মুন্ডিটা ঠিক লিচুর মত। আমি ওর মুন্ডিটাতে ডান হাতের বুড়ো আঙ্গুল বুলাতে থাকলাম। জলিল তখন পাগল পাগল অবস্থা । সে অবাক হয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। আমি আর সময় নষ্ট না করে মুখ রাখলাম জলিলের মুন্ডিটাতে। জলিল কি করবে বুঝতে পারছে না। সে একটু অপ্রস্তুত। আমি ডানহাতে ধোনটাকে ধরে জিভ চালালাম ধোনের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত। জলিল উহ করে উঠল। আমি এবার তার ধোনটা পুরোটা মুখে নিলাম। আমার গলার ভেতর মুন্ডিটা ধাক্কা খেল। জলিল হালকা ঠাপ দেওয়া শুরু করল, বলল, বাইজান, জীবনের পরথম কেও আমার বগাটা চুষল। আমার মাল সব বাইর অইয়া যাইব। আমি বললাম, তোমার বগাটাকে দেখো কি করি আমি। টেবিল থেকে ডাবরের মধুর বোতলটা নিয়ে ওর মুন্ডি আর বিচিতে বেশ করে মধু মাখলাম। এবার শুরু হল আসল খেলা। প্রথমেই মুন্ডির মধু চেটে পুটে খাওয়া শুরু করলাম। এবার বালে যে মধু ছিল তাও চাটতে লাগলাম। জলিল আহ আহ করছে আর আমার খাট আকড়ে ধরে আছে বলছে, বাইজান বগা চুষলে যে এত বালা লাগে আগে বুজতাম ফারি নাই । আহ আহ । আমার বগাটা আফনি চুষে চুসে লাল কইরা পালান। আমি এই কথা শুনে এবার দ্বিগুন গতিতে বিচি চুষা শুরু করলাম। বেচোরার অবস্থা খুবই খারাপ । আমার মাথার চুল আকড়ে ধরল। আমি বিচি চুষা বাদ দিয়ে আবার ধোন চোষা শুরু করলাম্ । আইসক্রিমের মত চুষে চলেছি। জলিল এর ধোনের রস আর আমার মুখের লালায় ধোনটা লাইটের আলোতে চক চক করছে। একটা কালো চকলেট এর মত। এবার জলিল আমার মুখে ঠাপ দেওয়া শুরু করল। আমি বুঝতে পারলাম ওর মাল বের হয়ার সময় ঘনিয়ে আসছ্ ে। আমি আরও জোরে জোরে ধোন চুষতে লাগলাম । এবার আর জলিল পালল না। সে আমাকে তার ধোনের সাথে ঠেসে ধরল । আহ আহ করে সাথে সাথে তার ধোনটা কেঁপে উঠল। আমি বুঝতে পারছিরাম মুখে গরম মাল পড়ছে । আমিও চুষে চুষে সবটা খেয়ে নিলাম। জলিল মরার মত খাটে শুয়ে রইল। ওর ধোনটা একপাশে পরে আছে। আমি একটা চুমু খেয়ে বরলাম এখন থেকে এটাকে আমি প্রতিদিন আদর করব। জলিল আমার দিকে চেয়ে মুচকি হাসল। আমি বুঝলাম মৌনতাই সম্মতির লক্ষণ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s