ভালোবাসার মানে মিলন না ভালোবাসা মানে অমরত্

muntasir munna র লেখা গল্প

সেই দশমী আবার চলে এলো । চারিদিক থেকে উলু ধ্বনি ভেসে আসছে । সিঁদুর খেলা ও প্রায় শেষ । এখনি বিসর্জন বোধই । এত উৎসব এর মধ্যে ও আমি বসে আছি একা একা । ঢাকের শব্দটা আরও বেশী মনে করিয়ে দিচ্ছে তোমাকে । গত পুঁজতে ও একসাথে ছিলাম । ঢাক বাজালাম দুজন মিলে … হাই রে সময় !!!! হাই রে নিয়তি !!!!
দাদার বন্ধু ছিলে তুমি । সেই সুত্রে পরিচয় । দাদার বিয়ের সময় অনেক বন্ধুদের সাথে তুমি ও এসেছিলে । আমি সামান্য গান গাইতে পারি । বিয়ে বাড়িতে গান বাজনা হবে না সেটা হয়না , গীটার নিয়ে বসে গেলাম । গায়ে হলুদের রাতে সারা রাত গান বাজনা হবে এটাই ফাইনাল । গান ধরলাম “ বসন্ত ছুঁয়েছে আমাকে “
কিছুক্ষণ পর যে যার মত চলে গেল । আমি হাফ ছেঁড়ে বাঁচলাম । উটতে যাবো এমন সময়ই “ কি গাতক “ কেও একজন ডাকল ।
পেছনে ফিরে দেখি তুমি , “ ও আপনি “
> হুম আমি । প্লান ক্যানসেল ?
>কি প্লান যেন ?
> গান বাজনার !!!
> কেও নাই তো , এমন ফালতু গান কি কাউ শুনে
> মোটেয়েও না … তুমি নিঃসন্দেহে খুব ভাল গান কর । আচ্ছা প্লান টা একটু এডিট করা যাক । সারারাত গান না হোক গল্প তো হবে ।
> যাক তাহলে আপনি ও আমার গান বিদ্বেষী ?
> আচ্ছা , তাহলে ২ টাই হবে । হা হা হা
আমারা সারারাত ২ জন গল্প করলাম । তোমার মনোমুগ্ধকর হাসি , তোমার কথা বলার ধরন যে কোন মানুষকে মুগ্ধ করবে
কিছু দিন পর তুমি আবার বাড়িতে আসলে কোন একটা কাজে । আমি তখন ক্লাস এ যাবো । তুমি বললে চলে তোমাই নামিয়ে দি। আমি বললাম , চলেন । এভাবে কারনে অকারনে প্রায় দেখা হতো । একদিন ক্লাস শেষ এ দেখি তুমি দাঁড়িয়ে আছ । আমি বললাম , কি ব্যাপার আপনি ।
>চল একটা কাজ আছে
> চলেন
একটা রেস্তরাঁ তে বসলাম ।
>তোমাকে একটা কথা বলতে চাই ।
> বলেন
>কিভাবে যে বলবো । খুব নার্ভাস লাগতেসে
> আরে ধুর !!! আমাকে একটা কথা বলতে যদি এত নার্ভাস হন তা হলে ত জীবনে আমি ভাবীর মুখ দেখবনা । বলে হেসে দিলাম
> আমি আর কাউকে চাই না , যদি তুমি পাশে থাক ।
তোমাকে প্রথম দেখাতেই ভাল লেগেছিল । তাই আর না বলি নি । এর পর থেকে প্রতিদিন এখানে অখানে দেখা করতাম । তুমি আমার জীবনের একটা অংশ হয়ে গেলে । সেদিন সন্ধ্যাই সেই প্রিয় রেস্তরাঁই , তোমাকে খুব বিষণ্ণ দেখাচ্ছে ।
> কি হইছে
>তুমি আমাকে সত্যি ভালবাস ?
> না !!!!
>আমি সেরিওউস
> আমার জীবনের থেকে ও বেশী
>আমি একটা জব পাইছি । তুমি আমার সাথে ঢাকা চল । ওখানে কোন একটা বিশ্ববিদ্যালয় এ তোমাকে ভর্তি করিয়ে দেব । যা করার খুব তাড়াতাড়ি করতে হবে । খুব বিপদ ।
> কি হইসে ?
>আমার বিয়ে থিক হইসে । তোমার দাদা পাত্রি দেখেছে । আব্বু আম্মু সবাই রাজি । তোমার দাদা জানে আমার কোন পছন্দের মেয়ে ছিল না । বাড়ি থেকে খুব তাড়াহুড়ো করছে । তাই বলেছি , আমি একজনকে পছন্দ করি । কিন্তু তোমার কথা বলতে পারছি না । কারন টা নিচ্ছই বুজতে পারছ ।
> এবার তুমি আমাকে বল , তুমি আমাকে কত ভালোবাসো ?
>তোমাকে আমি তোমার থেকে বেশি ভালবাসি আমার জান ।
>প্রমান দাও
> কি চাও বল ?
>তুমি বিয়েতে রাজি হয়ে যাও
>কি বলছ তুমি !!!! আমি পারব না তোমাকে ছাড়া বাঁচতে ।
>তার মানে তুমি আমাকে কিছুই দিতে পারো না ।
> তুমি কি সত্যি এটা চাও ?
>হুম
তুমি চলে গেলে । কাঁদতে কাঁদতে হাঁটছ বুজতে পারছি । আমি ও নিজেকে ধরে রাখতে পারলাম না । অনেক কষ্টে নিজেকে সামলালাম ।

কিছুদিন পর তোমার বিয়ে । দাদার কাছে তুমি বলেছ আমি যেন অবশ্যই যাই গিটার নিয়ে ।তোমার বিয়েতে আমার গান গাইতে হবে । এটা তোমার প্রতিশধ ছিল বুজতে পারছি । গেলাম বিয়েতে । তুমি বারবার আমার দিকে তাকাচ্ছ । আমি খুব হাসি হাসি ভাব নিয়ে আছি । বিয়ের পর বাড়িতে ফিরে আর নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারলাম না। একবার মনে হচ্ছিলো রাজী হওয়া উচিৎ ছিল । কিন্তু তাতে ভবিষ্যৎ !!! যেটা আমি তখন ভেবেছিলাম , যখন তুমি আমাকে তোমার সাথে যেতে বললে । বিশ্বাস কর , আমি শুধু তোমার কথা ই ভেবেছি । তোমার ভবিষ্যৎ এর কথা ভেবেছি । আমি কি পারতাম এই সমাজ নংরা কাদামাটি থেকে তোমাকে রক্ষা করতে । পারতাম না । ভালবাসার মোহ ওই নংরা কাদামাটি দিয়ে কোন একদিন ঠিক ঈ ঢেকে যেত ।
একদিন তোমার সাথে দেখা । ঠিক আগের মতই আছ । তুমি বললে …> কেমন আছ ?
>অনেক ভাল
>তুমি ?
>আমি ও । তোমাকে খুশি করতে পেরেছি । আর আমি ভাল থাকব না।
মনে মনে ভাবলাম তুমি এখনও আমার কথা ভাব !!!!
>জব ?
>নতুন জব । আগের থেকে ৪ গুন বেশি বেতন । গাড়ি দিয়েছে একটা ।
>খুব ভাল
ওই দিন চলে এলাম । তোমার দিকে তাকিয়ে দেখি ভেজা ভেজা চোখ । দাদার কাছে শুনলাম তুমি এখন বিরাট industry এর মালিক । আমি তো এটাই চাইছিলাম , তুমি বড় হও অনেক বড় । সমাজের কাদামাটিতে ফুল বিছাও । না হয় দুটি ভালবাসার মৃত্যুই হল । আদ্য কি মৃত্যু হল , নাকি দুজনের ভালবাসার মহিমা আরও গভীর হল । ভালোবাসার মানে মিলন না ভালোবাসা মানে অমরত্ত যেটা আমি বিশ্বাস করি । সেই বিশ্বাস নিয়েই বেঁচে আছি , সুখে আছি ।

2 thoughts on “ভালোবাসার মানে মিলন না ভালোবাসা মানে অমরত্

  1. bah! Ki asadharan galpo ta! Ami mohito! Etotao sacrifice keu krte pare, jana chhilo na. Khb bhalo laglo. Bhalo theko.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s