চাচাও যেমন ভাতিজাও তেমন

530739_372079429557259_1236945937_n

এটা আমার সত্যিকারের সেক্স করার গল্প । বাংলা গে পেইজে পোস্ট দিলে খুশি হব । এভাবেই লিখে পাঠাল আমার এক ফেসবুক বন্ধু । ওর নাম ইমরান খান । ……………………………………………………………………………………।।
সেদিন রাত ১১ টা ৩০ বাজে । ঘুমোতে যাব । এমন সময় ফোনের রিংটোন বেজে উঠলো । অচেনা নম্বর । আমি ফোন ধরেই বললাম, কে বলছেন ?
ও পাশ থেকে একজন ভরাট গলায় বলল, ভাইয়া এতো রাতে ফোন করার জন্য দুঃখিত । আমি ইউ এ ই থাকি । আমার দেশের বাড়ি চট্টগ্রাম ।
আমি বললাম, ঠিক আছে । কি জানতে চান বলুন ? আপনার নামটা যদি বলতেন ?
ও পাশ থেকে বলল, আমি সোহাগ । আসলে আমি আপনার ফেস বুক বন্ধু । আপনি বোধহয় চট্টগ্রাম থাকেন । তাই না ?
আমি বললাম , হ্যাঁ । ফেসবুকে আপনার আইডি নেম টা যদি বলতেন ?
সোহাগ বলল, আমার ফেস বুক আইডি সোহাগ খান ।
আমি বললাম, ওকে আমি চিনতে পেরেছি ।
সোহাগ বলল, ভাইয়া । আমি আগামী ১ মাস পর দেশে আসছি । আপনি যদি চান আমরা মিট করতে চাই ।
আমি বললাম, ঠিক আছে । সমস্যা নেই । দেখা হবে ।
ও পাশ থেকে সোহাগ বলল, ভাইয়া । আপনি কি আমার সাথে সেক্স করবেন ?
আমি কিছুটা অপ্রস্তুত । হথাত এই ধরনের সরাসরি প্রশ্নের জন্য আমি কিছুটা বিব্রত ।

আমি বললাম, দেখুন ভাইয়া । সেক্স এ দুজনেরই পছন্দ অপছন্দের ব্যপার আছে । তাই না ?
আগে আমরা মিট করি । তারপর সিদ্ধান্ত নেব ।
সোহাগ বলল, ঠিক আছে । তবে আমি আপনাকে তুমি করে বলতে চাই । আর প্লিজ । আপনিও আমাকে তুমি করে বলবেন ।
আমি বললাম, আচ্ছা ।
সোহাগ বলল, আপনার বয়স কত আর কি করেন ?
আমি একটু হাসলাম, বললাম, ২৪ বছর । দেখতে কিছুটা কালো । জব করি একটা । চলবে ?
সোহাগ আমার কথার ধরন শুনে হেসে ফেলে । বলে, চলবে মানে ? দৌড়বে !
আমিও ওর সাথে হাসতে থাকলাম । এভাবেই ওর সাথে নিয়মিত কথা বলা শুরু হল । দুজনে প্রতিদিন অনেক ব্যপার নিয়েই কথা বলতাম ।

যাই হোক । ঈদের বেশ কয়েকদিন আগে সে আমাকে একদিন ফোন দিয়ে বলল, ইমরান! আমি এখন দেশে । চট্টগ্রামে । আমার বাড়িতে ।
আমি খুব অবাক হলাম । ওকে বললাম, আমায় জানালে না কেন ?
ও বলল, সারপ্রাইজ দিব তাই !
ও বলল, আসবে ? আমাদের বাড়িতে ?
আমি বললাম, না । এখন তো রোজা চলছে ।
ও বলল, তাইতো ! আমার মনেই ছিল না ।

ঈদের দিন ও আমাকে ফোন করে উইশ করল । আমিও করলাম । তার ঠিক দু দিন পর আমি ঠিক করলাম আমি তার বাড়ি যাব । ঘুরতে । তার সাথে দেখা করতে ।
সোহাগ বলল, ওর বাড়ি বোয়াল খালিতে । ও ডিটেইল ঠিকানা দিল ।
আমি রওনা দিলাম । ওর বাড়ি পৌঁছতে পৌঁছতে আমার রাত ৮ টা বেজে গেল ।
ওরা যৌথ পরিবার । সবাই একসাথে থাকে । আমার খুব ভালো লাগছিলো । কারণ এখন বেশিরভাগ মানুষরাই একা থাকে । যৌথ পরিবারে থাকে না ।
তবে একটা ব্যপার জেনে কিছুটা অবাক হলাম । সেটা হল, সোহাগ বিবাহিত । যা আমি আগে জানতাম না । সোহাগ আমায় সেটা আগে বলে নি । যাই হোক ।
ওর বউ কে দেখে ভালই মনে হল । রাতে খাওয়া দাওয়া শেষে সোহাগ আমাকে তাদের বাড়ির ছাদে নিয়ে গেল ।
সেখানে একটা রুম আছে । বুঝলাম । এই রুমটাতে কেউ থাকে না ।
সোহাগ বলল, আমি দেশে থাকতে এই রুমেই থাকতাম ।
আমি বললাম, ও । ভালো ।
রুমে জিনিসপত্র খুব বেশি নেই । একটা খাট । একটা আলমারি । আর একটা টেবিল ।
আমি খাটে বসলাম ।
সোহাগ রুমের দরজা লাগিয়ে দিল । আমাকে এসে জড়িয়ে ধরল ।
আমিও ওকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরলাম ।
ওর ঠোঁটে ঠোঁট রাখলাম । কিস করতে লাগলাম ।
দু জনই গরম হয়ে গেছি ।
ও একটু বেশি উত্তেজিত হয়ে গেল । আমার প্যান্টের হুক আর জিপার খুলে আন্ডার ওয়্যার টা টেনে নামাল ।
এক মুহূর্ত দেরি না করে আমার ৬ ইঞ্চি পেনিস ওর মুখে নিয়ে নিল ।
চুষতে লাগলো ।
প্রথমে অল্প অল্প । তারপরে জোরে জোরে চুষতে লাগলো । পুরোটা পেনিস ও মুখের ভেতর নিয়ে নিল ।
আমি সুখে পাগল হয়ে গেছি তখন । হিতাহিত ভুলে আমি ওর মাথাটা থেসে ধরলাম আমার নিচের দিকে ।
ঠেলা মারতে থাকলাম ।
সোহাগের গরম নিঃশ্বাস আমার পেনিসের গোরায় পড়ছে । আমি যেন আরও উত্তেজিত হয়ে গেলাম ।
এভাবে মিনিট পনের কাটল ।
আমি এবার সোহাগ কে বললাম, আমার মাথা গরম হয়ে গেছে ।
তোমাকে চুদতে হবে এখন ।
সোহাগ বলল, আমিতো তাই চাই ।
আমি কথা না বাড়িয়ে সোহাগ কে এক ধাক্কায় বিছানায় ফেলে দিই ।
ওকে খাটের কিনারায় টেনে নিয়ে ওর লুঙ্গিতা খুলি ।
ও একটু স্বাস্থ্যবান । তার ওর পাছাটা বেশ বড় ।
আমি ওর পাছায় হালকা থাপ্পড় দিলাম । থাস করে একটা শব্দ হল পুরো ঘরটা জুড়ে ।
আমি জানি কি করে সেক্স উঠাতে হয় ।
সোহাগ আহ করে উঠলো , বলল, দেরি করো না । তাড়াতাড়ি ধুকাও ।
আমি অল্প হাসলাম । আমার বাম হাতের দুইটা আঙ্গুলে থুথু দিয়ে সোহাগের পাছার ফুটাতে ধুকালাম । সোহাগ আহ করে উঠে আমার পেনিস খপ করে ধরল ।
বলল, জোরে জোরে আঙ্গুল ধুকাও ।
আমি এই কথা শুনেই ওর পুটকির ভেতর ৩ টা আঙ্গুল ধুকালাম ।
ও আরও জোরে আহ করে উঠলো ।
আমার মাথায় মাল উঠলে আমি সব ভুলে যাই ।
নিষ্ঠুরের মত আঙ্গুল ধুকাই আর বের করি ।

সোহাগ বলে, প্লিজ । আঙ্গুল দিয়ে হবে না । তোমার কলাটা ঢুকাও ।
আমি এবার সোহাগ কে টেনে বিছানা থেকে তুলে বললাম, তোর চুদা খাওয়ার এতো শখ । আজ তোকে চুদার খেলা দেখাব ।
দাঁড়িয়ে চুদব তোকে ।
সোহাগ কে আলমারিটার সামনে দাড় করালাম ।
স্টিলের আলমারিটার সাথে একটা আয়না ফিট করা ।
আয়নায় উদোম সোহাগ কে দেখে আমি আরও কাম পাগলা হয়ে গেলাম ।
সোহাগ আলমারিতে হাত দিয়ে ধরে আমার দিকে পাছা খুলে পা ফাঁক করে দাঁড়াল ।
আমি আমার মুখ থেকে এক দলা থুথু বের করে আমার ধোনের মুখে আর ওর পাছার ছিদ্রে লাগালাম ।
এরপর এক ঠেলা দিতেই ওটা ঢুকে গেল ।
ও ব্যথায় আলমারিটাকে আঁকড়ে ধরল ।
আমি থামলাম না । কারণ আমি তখন পাগলা কুকুর হয়ে গেছি ।
ওর পাছা টা দু হাতে মেলে ধরে ওকে জোরে জোরে ঠেলা দিতে থাকলাম ।
আলমারিটা ক্যাচ ক্যাচ করে শব্দ করতে লাগলো ।
আমার নিচের অংশ ওর পাছায় তাল তুলল ।
ও গোঙাতে থাকল ।
বলল, আসতে করো ।
আমি বললাম, আস্তে না । আমি আজ চুদে ফাটিয়েই দিব ।
ও আহ আহ করতে থাকল ।
আমি ওকে আয়নার দিকে সাইড করে ফেরালাম। ও ওর ডান হাতে আলমারিটার এক পাশ ধরে রাখল ।
আমিও ঘুরে দাঁড়ালাম । এখন আমার ডান পাশ আয়নায় দেখা যাচ্ছে ।
আমি আমার ধন টা বের করে আবার ধুকালাম ।
কাওকে আয়নায় দেখে দেখে চুদা যে এতো মজা টা জানতাম না ।
আমি ওর কাঁধে দু হাত দিয়ে আমার কোমর জোরে জোরে ঠেলে দিতে থাকলাম ।
ও এবার তার পাছা পেছন দিকে ঠেলা দিতে থাকল ।
ঘরে তখন শুধু পক পক পক করে শব্দ হচ্ছে ।
এই শীতের রাতেও দুজন ঘামছি । দর দর করে ।
ও শীৎকার দিয়েই যাচ্ছে ।
আমিও পাগলের মত চুদেই চলেছি ।
একটা সময় বুঝলাম আমার বেরুবে ।
আমি শক্ত করে ওকে জড়িয়ে ধরলাম । ওর পেট টা ধরে ওর পেছন দিক আমার সামনের দিকের সাথে মিশিয়ে ফেলতে লাগলাম । জোরে একটা ঠেলা দিতেই আমার মাল বেরুল ।
আমি জোরে আহ করে চিৎকার দিয়ে উঠলাম ।
বুঝলাম আমার মাল বের হয়েছে ।
ক্লান্ত হয়ে দুজন বিছানায় ১০ মিনিট রেস্ট নিলাম ।
এরপর দুজন পরিস্কার হলাম । সোহাগ আমাকে নিয়ে নিচে আসল । ঘটনা এখানেই শেষ হতে পারত । কিন্তু আমার জন্য যে আরও কিছু অপেক্ষা করছিল টা আমি বুঝি নি ।
রাতে সোহাগ তার বউ এর সাথে থাকবে । তাই আমার থাকার ব্যবস্থা হল তার ভাতিজার সাথে । রাত তখন ১ টা বাজে ।
ঘুমের মধ্যে কখন যে ওর ভাতিজাকে আমি জড়িয়ে ধরেছি টের পাই নি ।
খেয়াল করলাম ও আমাকে জড়িয়ে ধরেছে । আমি কিছুটা অবাক । এসব কি হচ্ছে আমার সাথে ।
আমার ধন টা এর মাঝেই হট হয়ে গেল । লুংগি পড়া ছিলাম । তাই ওটা দাঁড়িয়ে গিয়ে ওই ভাতিজার দুই পায়ের রানের মাঝে খোঁচা দিতে লাগলো ।
ভাতিজাও চালু মাল । দুই রান দিয়ে আমার পেনিস টাকে চেপে ধরল । আমি বুঝলাম ও ওর চাচার মত চুদা খেতে চায় ।
মাথা পুরাই আউলাইয়া গেল ।
আমি কি করব বুঝতে পারছিলাম না । ওকে ধরে পাশ ফিরিয়ে ওর হাফ প্যান্ট টেনে নামালাম । লুঙ্গিটা কোমর পর্যন্ত তুলে ওর পাছায় থুথু দিলাম । আর আমার ওটাতেও থুথু দিলাম ।
এবার ঢুকিয়েই শুরু হল খেলা ।
যখন খেলা শেষ হল তখন রাত শেষের পথে ।
আমি বেশ ক্লান্ত । দু দুইবার ধকল যাবার কারণে । তবে আমি খুব অবাক । কারণ এমন ঘটনা আমার জীবনে আগে ঘটেনি ।
চাচাও যেমন । ভাতিজাও তেমন । মনে মনে হাসলাম ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s