লঞ্চে একরাত


আমি ইমরান আহমেদ । ঢাকায় থাকি ।
আমার ঘটনাটা গত বছরের শীতের সময়কার ।
সেবার বরিশাল যাচ্ছিলাম । আমার খালার বাসায় ।
সন্ধ্যা ৭ টায় সদরঘাট এসে দেখি অনেক ভিড় । চারদিকে শুধু লোক আর লোক ।
আমি পারাবত-২ এ উঠে এদিক সেদিক ঘুরাঘুরি করছি ।
এমন সময় একটা লোক আমার দিকে এগিয়ে আসল ।
কাছে এসে বলল, ভাইয়া । আপনার কি কেবিন লাগবে ?
আমি বললাম, না ভাই । আমি স্টুডেন্ট । এতো টাকা নাই ।
লোকটা বলল, ভাই । আপনি ইচ্ছা করলে কারো সাথে কেবিন শেয়ার করে যেতে পারেন ।এতে আপনার খরচ হাফ পরবে । যাবেন ?
আমি তখন চিন্তা করে দেখলাম । ব্যপার টা ভালই । কেবিন নিলে আরামে এক ঘুমে রাত কেটে যাবে ।
পরদিন সোজা বরিশাল ।
আমি রাজি হলাম ।
লোকটা আমাকে নিয়ে তিন তলায় নিয়ে গেল । সেখানে সুন্দর একটা কেবিন দেখাল । পছন্দ হওয়াতে নিয়ে নিলাম । টাকা নিয়ে লোকটা চলে গেল ।
আমি বিছানায় গা এলিয়ে সুনীলের একটা উপন্যাসের বই এর পাতায় মনোযোগ দিলাম ।
কিছু সময় কেটে যাওয়ার পর কে যেন দরজায় নক করল ।
আমি উঠে দেখি ওই লোকটা আসছে । তার সাথে ২২-২৩ বছরের একটা ছেলে । ব্লু শার্ট আর ব্ল্যাক জিন্স পরা ছেলেটা যথেষ্ট টল ফিগারের ।
লোকটা আমাকে বলল, ভাই । এই যে আপনার কেবিন মেট । উনার সাথে আজ কেবিন শেয়ার করতে হবে আপনাকে । আর কিছু লাগলে জানাবেন ।
আমি বললাম, ঠিক আছে ।
লোকটা চলে গেল ।
লোকটা চলে যাওয়ার পর আমি আবার বইটা নিয়ে বসলাম ।
বুঝতে পারছিলাম ছেলেটা অনেক লাজুক । চুপ করে বিছানার এক পাশে বসে আছে ।
তাই আমি নিজ থেকেই আগ বাড়িয়ে পরিচিত হলাম ।
জানলাম ওর নাম তুষার । ঢাকা উত্তরাতে থাকে । বিবিএ তে পড়ছে ।
দেশের বাড়ি খুলনায় । কিন্তু বরিশাল যাচ্ছে এক বন্ধুর বাসায় । সেই বন্ধুর বড় বোনের বিয়েতে যোগ দিতে ।
কিছুক্ষন গল্প গুজব করার পর আমরা দুজন খুব ফ্রি হয়ে গেলাম ।
একটু পর রুমের দরজা লাগিয়ে বারান্দায় এসে দাঁড়ালাম ।
বাইরে তাকিয়ে দেখি আকাশে একটুও মেঘ নেই । পরিস্কার রাতের আকাশ । হাজার তারা ।
মাঝে মাঝে হালকা ঠাণ্ডা বাতাস হচ্ছে ।
লঞ্চটা খুব জোরে চলছে ।
আমরা দুজন বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলছিলাম ।
কখনও সিনেমা , কখনও গান, কখনও রাজনীতি , কখনও ক্রিকেট ।
নদীর আশে পাশে গাড় অন্ধকার । কিছু দেখা বা বোঝা যায় না ।

একটু পর দুজন নিচে নেমে খেয়ে আসলাম ।
রুমে ফিরে এক কম্বলের নিচে শুয়ে গল্প করতে লাগলাম ।
জানলাম ওর গার্ল ফ্রেন্ড ছিল । কিন্তু বিয়ে হয়ে গেছে ।
আপাতত আর প্রেম করবে না । এখন পড়াশুনায় মনোযোগ দেবে ।
আমিও আমার অনেক কথা বললাম ।
শেষে বললাম , ভাই আমার একটা বাজে অভ্যাস আছে ।
তুষার বলল, কি ভাই ?
আমি বললাম, রাতে পাশে কেউ থাকলে মাঝে মাঝে ঘুমের মাঝে জড়িয়ে ধরি । আপনি কিছু মনে করবেন না ।
তুষার বলল, প্রবলেম নাই ভাই ।
কথায় কথায় দেখি রাত ১ টা বেজে গেছে ।
আমি লাইট অফ করে দিলাম ।
দুজনই কোন কথা বলছি না ।
আমি মনে মনে ভাবছি মানুষের জীবন কি অদ্ভুত ! কাল কোথায় ছিলাম আর আজ কোথায় আছি ।
চেনা নাই জানা নাই অপরিচিত মানুষের পাশে ঘুমাচ্ছি ।
কাল কোথায় থাকব কে জানে ?
লঞ্চ বোধহয় মাঝ নদীতে । ঠাণ্ডাও অনেক বেড়ে গেছে ।
আমি ঘুমের মাঝে তুষারের চুলে হাত বুলাই ।
বুঝতে পারি ও নাক ডাকছে ।
আমিও একফাকে ঘুমিয়ে গেছি ।
কিন্তু একসময় ঘুম ভাঙ্গে । দেখি তুষার আমাকে তার বুকের মাঝে জাপটে ধরে ঘুমাচ্ছে ।
সম্ভবত ওর খুব শীত লাগছিল তাই ।
আমাকে জড়িয়ে উষ্ণতা নিচ্ছিল ।
আমার খুব ভালো লাগছিল ।
ওর শরীরের পুরুষালি ঘামের গন্ধ, ওর শ্যাম্পু করা চুলের ঘ্রান আমার বুকে কেমন তোলপাড় তুলে দিল টা বলে বুঝাতে পারব না ।
আমি এবার ওকে খুব যত্ন করে বুকে আগলে নিলাম ।
মনে হচ্ছিল ওকে আমি চিনি । কতদিন ধরে !
কখন যে ওর ঠোঁটে ঠোঁট রেখেছি বলতে পারব না ।
একটু পর দেখলাম তুষার ঘুমের মাঝেই অল্প অল্প সাড়া দিতে শুরু করল ।
আমি এবার আরেকটু সাহসী হলাম ।
হাতটা ওর পুরুসাঙ্গের উপরে রাখলাম ।
বুঝতে পারছিলাম ওটা আদরের ছোঁয়ায় দুলে দুলে উঠছে ।
আমি আরও সাহসী হলাম ।
ওর জিন্সের প্যান্ট এর জিপার খুলে ওর আন্ডার ওয়্যারের উপর দিয়ে ওর পুরুষাঙ্গ মুঠোয় নিলাম ।
উফ ।
ওটা তীর তীর করে কাঁপছে ।
তুষার নড়ে চড়ে উঠে ।
ও আমার হাতের উপর হাত রেখে চাপ দেয়।
আমি এবার আর কোন কিছু পরোয়া করি না ।
ওর আন্ডার ওয়্যারের ভেতরে আমার ডান হাত ঢুকিয়ে দিই ।
ওর পুরুসাঙ্গের উপর হালকা পশম ।
আমি হাত দিয়ে আদর দিই ।
তুষার আমাকে সুবিধা করে দেবার জন্য জিন্সের প্যান্ট খুলে ফেলে ।
কম্বলের নিচে ও আন্ডার ওয়্যার পরা ।
আমিও আমার প্যান্ট খুলে পাশে রাখি ।
আন্ডার ওয়্যার পড়ে একজন আরেকজনের সাথে জড়াজড়ি করছি ।
দুজনের নাক দিয়ে গরম নিঃশ্বাস পড়ছে ।
আমি এবার ওর আন্ডার ওয়্যার খুলে দিলাম ।আমার টাও খুললাম ।
দুজনের পুরুষাঙ্গ লাফিয়ে বের হল ।
দুজন দুজনকে অনেক জোরে চেপে ধরতে লাগলাম ।
ওর পুরুষাঙ্গটা আমার দু পায়ের ফাঁকে নিয়ে আদর করে দিচ্ছিলাম ।
ও শুধু তার কোমর ঠেলে দিচ্ছিল ।
আমি এবার চিত হয়ে শুয়ে ওকে আমার উপরে তুললাম ।
দু পায়ের ফাঁকে বেশ করে লসন মেখে ওর পুরুষাঙ্গ ওখানে ঢুকিয়ে দিলাম ।
আমার দুই রানের ফাঁকে ওর পেনিস ঢুকছে আর বেরুচ্ছে ।
আমার খুব ভালো লাগছিল ।
কারণ আমার পেনিস টাও ওর পেটের সাথে ঘষা খাচ্ছিল ।
একটু পর ওর মাল বের হল ।
আমিও হাত দিয়ে আমার মাল বের করে ফেললাম ।
এরপর সারারাত আমরা দুজন দুজনকে সুখ সাগরে কখনও ভাসিয়েছি কখনও ডুবিয়েছি ।
তখন ভোরের আজান পড়ছে ।
আমরা দুজনই ক্লান্ত ।
ঘুমিয়ে গেলাম ।
ঘুম ভাঙল সকাল ৮ টায় । ওই লোকটার দরজায় নক শুনে ।
দরজা খুলতেই ওই লোক বলল, কি মামারা বাসায় যাবেন না ?
ওই লোকের কথা শুনে আমরা দুজনেই লজ্জা পেলাম ।
তাড়াতাড়ি উঠে ফ্রেস হয়ে নিলাম ।
একটু পর দুজন একসাথে বরিশাল শহরের বুকে পা রাখলাম ।
একটা ভালো হোটেলে ঢুকে নাস্তা সারলাম দুজন ।
একজন আরেকজনের সেল নম্বর নিয়ে নিলাম ।
তারপর ঠিক করলাম যে আজ বিকেলে দেখা করব আবার ।
বিদায় নিয়ে দুজন দুদিকে চলে গেলাম ।
কিছু সময় পর ওর মেসেজ পেলাম ফোনে…..গতকাল রাত আমার জীবনের স্মরণীয় রাত ছিল যা আমি কখনও ভুলব না । থ্যাংকস ফর এভ্রিথিং ।
ওর মেসেজ পেয়ে আনন্দে আমার মনটা ভরে গেল ।
এর পর কতদিন কত রাত যে দুজন একসাথে থেকেছি তার হিসেব নেই ।
ও এখন আমার বেষ্ট ফ্রেন্ড ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s