সমকাম টিচারের সাথে গে সেক্স


তখন আমি এইচ এস সি প্রথম বর্ষে পড়ি ।
২০০০ সালের জানুয়ারির দিকের কথা । আমি থাকি সিলেট অঞ্চলে । বেশ ঠাণ্ডা তখন ।
কলেজে একটা অনুষ্ঠান হচ্ছিল । সেখানে একটা নাটক মঞ্চস্থ হয় । নাটকটা লিখেছিলাম আমি ।
এমনকি পরিচালনাও আমিই করেছিলাম ।
ছোটবেলা থেকেই আমি টুকটাক লেখালেখি করতাম । ছাত্র হিসেবেও ভালো ছিলাম ।
তাই সবাই বেশ আদর করত ।
যাই হোক । নাটক শেষ হতে হতে বেশ রাত হয়ে গেল ।
নাটক দেখে সবাই খুব প্রশংসা করছিল । আমার খুব ভালো লাগছিল । আমার বাসা খুব দূরে ছিল ।
তখন ঘড়িতে প্রায় ১১ টা বাজে । তাই এতো রাতে বাসায় ফেরা সম্ভব ছিল না ।
তাই আমি এবং আমার কয়েকজন বন্ধু সিদ্ধান্ত নিলাম কাছেই স্যারদের কোয়ার্টার । সেখানেই আজ থাকব ।সেদিন রাতে স্যারদের কোয়ার্টারে যাই ।
স্যাররা অনেক প্রশংসা করেন আমার । নাটক নিয়ে অনেক আলোচনা হল । রাতের খাবারও খেয়ে নিলাম ।
সব কিছু শেষে দেখা গেল রাত ১২ টা ৩০ বেজে গেসে ।
এখন ঘুমাতে হবে ।

সিদ্ধান্ত হল আমি থাকব বাংলা স্যার এর সাথে ।
আমি স্যার এর সাথে স্যার এর রুমে গেলাম ।
স্যার বলল, কি ব্যপার । খুব টায়ার্ড নাকি জাহেদ!
আমি বললাম, জি স্যার ।
স্যার বলল, জিন্সের প্যান্ট পরে কি শুতে পারবে ? আমার এক্সট্রা লুঙ্গি আছে । দিই । চেঞ্জ করে নাও ।
আমিও বললাম , ঠিক আছে স্যার ।
স্যার লুঙ্গি এনে দেয়ার পর চেঞ্জ করে শুইলাম ।
স্যার আর আমি এক বিছানায় ।
স্যার এর বয়স খুব বেশি না । ২৮ কি ২৯ হবে । বাংলা পড়ান আমাদের । খুব সুন্দর করে কথা বলেন ।
স্যার এর সাথে লেখালেখি নিয়ে কথা বলতে লাগলাম ।
স্যার ও বিভিন্ন বিষয়ে টিপস দিতে লাগলেন ।
আমি আর স্যার একই কম্বলের নীচে ছিলাম ।
তাই প্রথম প্রথম একটু আন ইজি লাগলেও পরে সহজ হয়ে গেলাম ।
এভাবে রাত প্রায় ২ টা বেজে গেল । তাই ঘুমিয়ে গেলাম ।
রাত বাড়ার সাথে সাথে শীতও বাড়ছিল ।
আমি জড়সড় হয়ে শুয়ে আছি ।

ঘুমের মাঝে কখন যে স্যারকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে আছি খেয়াল নেই ।
আচমকা খেয়াল করলাম স্যার আমার সমস্ত শরীরে হাত বুলাচ্ছেন ।
আমি প্রথমে ভাবলাম । হয়ত আমার মনের ভুল ।
একটু পর বুঝলাম মনের ভুল নয় ।
স্যার সত্যি সত্যি আমার সারা শরীরে হাত বুলাচ্ছেন ।
শীতের রাত । তাই ভালো লাগছিল ।
আমার শরীরে এর আগে কেও এভাবে আদর করেনি ।
তাই ব্যপার টা উপভোগ করছিলাম ।
স্যার আমার প্রতি আরও ক্লোজ হলেন । বুঝতে পারলাম ।
আমিতো ভয়ে শেষ । এসব কি হতে যাচ্ছে ?
স্যার আচমকা আমার পুরুসাঙ্গে হাত দিলেন লুঙ্গির উপর দিয়েই ।
হাত দিতেই আমার পুরুষাঙ্গ শক্ত হয়ে গেল ।
ভয়, আতংক আর বিস্ময় সব মিলিয়ে আমি একটা অদ্ভুত পরিস্থিতির মাঝে আছি ।
স্যার আমার পুরুষাঙ্গ তার হাতের মুঠোয় নিয়ে আদর করেই যাচ্ছেন ।
আমি বাধা দিচ্ছি না । দেখি স্যার কি করেন ।
স্যার যখন দেখলেন আমি বাধা দিচ্ছি না তখন আরও বেশি সাহসী হলেন ।
লুঙ্গির গিট খুলে ফেললেন আমার ।
লুঙ্গিটা হাঁটু পর্যন্ত নামিয়ে দিলেন ।

আমি খুব অবাক ।
স্যার ডান হাতে আমার পুরুষাঙ্গ ধরে আমার ঠোঁটে ঠোঁট রাখলেন ।
আমি শুধু উম উম করছি ।
কিছু বলার চেষ্টা করছিলাম । স্যার বললেন, চুপ করে থাক ।
স্যার সমানে আমার ঠোঁট গলায় চুমু দিতে লাগলেন আর হাত দিয়ে পুরুষাঙ্গ মোচড় দিতে লাগলেন ।
এবার স্যার তার মুখ আমার নিপলে নামিয়ে আনলেন ।
আমার বুকের বৃন্তের ডগায় তার জিব এর স্পর্শ দিলেন ।
আমি কেঁপে উঠলাম ।
মুখ দিয়ে শুধু স্যার স্যার করছি ।
স্যার এবার নিপল ঠোঁট দিয়ে চেপে চেপে চুষতে লাগলেন ।
আমি আদিম খেলায় মেতে উঠেছি ।
আমি অটো স্যার এর লুঙ্গিতে হাত দিই । গিট খুলে স্যার এর পুরুষাঙ্গ হাত বুলাই ।
অনভিজ্ঞ আমি স্যার এর পুরুষাঙ্গ মুঠ করে ধরে আদর দিই ।
স্যার বলে, আমার ওটা উপর নিচ করে চাপ দিতে থাক ।
আমি স্যার যা বলে তাই করি ।
মনে হচ্ছিল আমি স্যার এর হাতের রিমোট কন্ট্রোল । উনি যা বলবেন আমি তাই করব ।
স্যার এবার কম্বলের নিচে আমার পুরুষাঙ্গ তার মুখে নিলেন ।
আমি কেঁপে কেঁপে উঠে বললাম, স্যার না !
স্যার বলল, তোমার ভালো লাগবে । দেখ কি করি !
আমি স্যার কে বাধা দিই না ।
স্যার আমার পুরুসাঙ্গের গোরায় ঠোঁট বুলান । জিব দিয়ে আসতে আসতে আদর করেন ।
কিন্তু পুরুষাঙ্গ পুরোটা তার মুখে নিতেই আমি বুঝতে পারলাম মানুষের মুখের ভেতরের তাপমাত্রা কত বেশি থাকে ।
আরামে আমার চোখ বুজে আসল ।
ঠিক ২-৩ মিনিট পরেই আমার বীর্য বের হয়ে গেল ।
স্যার এর মুখ বীর্যে ভরে গেল ।
স্যার গিলে ফেললেন ।
আমি অবাক ! স্যার এটা কি করলেন !
স্যার হেসে বললেন, কি ব্যপার জাহেদ ! ২ মিনিটেই শেষ ! এমন হলে কি বউ থাকবে ?
আমি বললাম, স্যার এটাই আমার জীবনের প্রথম ।
স্যার হাসলেন ।
স্যার এবার তার পুরুষাঙ্গ আমার হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলেন, চুস আমারটা ।
আমি বললাম, স্যার এটা আমার পক্ষে পসিবল না ।
স্যার বললেন, কেন ?
আমি বললাম, আমি কখনও চুসিনি ।
আমি রাজি হলাম না ।
স্যার বললেন, ঠিক আছে । পেশাব করে ক্লিন হয়ে আস ।

আমি বাথরুমে গিয়ে ক্লিন হলাম ।
এসে কম্বলের নিচে আসতেই স্যার আবার আমাকে নিয়ে খেলতে লাগলেন ।
আমার ঠোঁটে বুকে আবার চুমু খেতে থাকেন ।
স্বভাবতই আমি আবার উত্তেজিত হয়ে যেতে থাকি ।
স্যার এবার আমাকে বলেন যে তারটা একটু হলেও মুখে নিতে হবে ।
আমি এবার আর না করলাম না ।
স্যার এর পেনিস টা আমার চাইতে বড় । ডিম লাইটের আলোয় দেখতে পেলাম ।
পুরুসাঙ্গের মাথায় অনিচ্ছাকৃত ভাবে মুখ রাখতেই আমার গা গুলিয়ে উঠল ।
আমি কোন রকমে নিঃশ্বাস বন্ধ একবার চুষলাম ।
আমার ভালো লাগছিল না ।
বমি বমি লাগছিল ।
স্যার বলল, ঠিক আছে । আর চুষা লাগবে না।
আমি ভাবলাম, যাক। বেঁচে গেসি । কিন্তু না ।
আমার জন্য আরও কিছু অবাক করছিল ।
স্যার আমাকে বলে তোমার পিছনে আমারটা ঢুকাব ।
আমি বললাম, স্যার । আপনি কি পাগল হইসেন ? আপনার এতো মোটা জিনিস ! আমি পারব না । আমার এসব ভালো লাগছে না ।
স্যার বললেন , আগে করে দেখ । ভালো না লাগলে করো না ।
আমি অনেক জোরাজোরির পর রাজি হলাম ।
স্যার উঠে তার টেবিল থেকে লশন নিয়ে তার পুরুসাঙ্গে মাখলেন ।
আমার পেছন দিকেও একটু লশন লাগালেন ।
এবার আমাকে উপুড় করে শুয়ে দিলেন ।
আমার পাছার মাংস ফাঁক করে উনার পুরুষাঙ্গ সেট করলেন ।
আমাকে বললেন, জাহেদ । ইজি হও ।
আমি ভেতরে ভেতর ভয়ে শেষ । ইজি হব কি করে । কাঠ হয়ে যাচ্ছি ।
স্যার এবার এক ধাক্কা দিয়ে তার পুরুসাঙ্গের অর্ধেকটা ঢুকিয়ে দিলেন ।
আমার মনে হল আমার পাছার ভেতর ছিরে গেছে । ফেটে গেছে ।
আমি বললাম, স্যার । আমার অনেক ব্যথা হচ্ছে । আমি পারব না । প্লিজ ।
আমি ব্যথায় কুঁকড়ে গেলাম ।
স্যার এর বোধহয় দয়া হল ।
স্যার তার পুরুষাঙ্গ টেনে বের করলেন ।
আমাকে জড়িয়ে ধরে চুমু দিলেন ।
আদর করতে লাগলেন ।
বললেন, ঠিক আছে । তোমার দু পায়ের মাঝে করব ।
স্যার এবার আমার দুই রান একসাথে করলেন ।
তারপর তার পুরুষাঙ্গ ওখানে ঢুকিয়ে আমার ঠোঁটে চুমু দিতে লাগলেন ।
স্যার এর শরীরটা উথানামা করতে লাগল ।
স্যার এর পুরুষাঙ্গ আমার রানের ফাঁকে ঢুকছে আর বেরুচ্ছে ।
আমার অণ্ডকোষের নীচে স্যার এর পেনিস ঘষা খাচ্ছে ।
কখনও কখনও আমার পেনিস তার পেট বরাবর ঘষা খাচ্ছে ।
এবার আমার ভালো লাগছিল ।
স্যার এর শরীরের ঘসায় ঘসায় আমার মাল বের হয়ে গেল ।
একটু পর স্যার ও মাল বের করে ফেললেন ।
দুজন কিছুক্ষণ মরার মত বিছানায় পরে রইলাম ।
একটু পর উঠে দুজনেই ফ্রেস হলাম ।

পরদিন স্যার ঘুম থেকে উঠার আগেই আমি তাড়াতাড়ি উঠে চলে আসি লজ্জায় ।
এরপর থেকে স্যার এর সামনে একা কখনও যেতাম না ।
স্যার আমার সাথে একা কথা বলতে চাইতেন । আমি বলতাম না ।
স্যার আমাকে বিভিন্ন গিফট দিতেন ।
একদিন রাস্তায় আমায় একা পেয়ে বললেন, জাহেদ । তুমি কি আমাকে লাইক করো না ?
আমি বললাম, স্যার । এসব আমার ভালো লাগে না ।
স্যার বলল, তোমাকে আমার ভালো লাগে । প্লিজ ! আরেকবার করতে চাই ।
আমি বললাম, স্যার ! আপনি যদি বেশি বাড়াবাড়ি করেন তাহলে আমি সবাইকে বলে দেব ।
স্যার কিছু বলেন না । চুপ করে মাথা নিচু করে চলে যান ।
আমি তাকিয়ে থাকি ।

আসলে স্যারকে আমার ভালো লাগত । এটা ঠিক । কিন্তু সেক্স করার জন্য না ।
আর সেদিন রাতের এনালের ঘটনাটার কারণে আমার মনের ভেতর একটা চাপা জেদ কাজ করছিল ।
তাই স্যারকে আমি ফিরিয়ে দিই ।
স্যারকে আমি কোনদিন ক্ষমা করব না !
কারণ স্যার এর ওই একরাতের ঘটনা আমার জীবনটাই পাল্টে দিয়েছে ।
আমি এখন ছেলেদের সাথে সেক্স করি । ছেলেদের ভালোবাসি । কিন্তু আমি এমন ছিলাম না ।
ওই ঘটনার ৪-৫ বছর পর আমি আবার কারো সাথে সেক্স করি । সে গল্প আরেকদিন করব ।

One thought on “সমকাম টিচারের সাথে গে সেক্স

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s