কষ্ট


আমি রাহুল । থাকি রাজশাহীতে ।
তখন ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাস । আমি এইচ এস সি ফার্স্ট ইয়ারে পড়ি ।
একদিন রাজশাহীর একজন ফেসবুক বন্ধুর সাথে কথা হয় আমার ।
কিছুক্ষন চ্যাট করার পর সে আমার সেল নম্বর চায় ।
আমি দিই ।
একটু পর সে আমাকে ফোন করে ।
ওর সাথে কথা বলে আমার খুব ভালো লাগছিল ।
তাই ঠিক করলাম পরদিন সকালে তার সাথে দেখা করব ।

পরদিন সকাল ১১ টা ।
আমি ওর জন্য অপেক্ষা করছি ।
এবার আমার অবাক হবার পালা ।
আমি অবাক হলাম এই কারণে যার সাথে দেখা করতে এসেছি সে আমার পরিচিত ।
আমাদের পাড়ারই বড় ভাই সে । নাম প্রিন্স ।
যেহেতু ভাইয়া কে আগে থেকে চিনতাম তাই একটু লজ্জা পেলাম ।
কিন্তু কিছুক্ষন কথা বার্তা বলার পর আমাদের মাঝে জড়তা আর লজ্জা অনেকটা কমে যায় ।
সেদিন এর পর থেকে আমরা সময় পেলেই দেখা করতাম ।
কথা বলতাম ।
আমাদের বাসা যেহেতু এক পাড়াতে তাই মাঝে মাঝে আমরা রাত ১২ টার পরেও ঘুরতে যেতাম একসাথে ।
আস্তে আস্তে বুঝতে পারছিলাম প্রিন্স আর আমি একে অন্যের প্রেমে পড়ে যাচ্ছি ।
যাই হোক ।
ওকে না দেখলে আমার বুকের ভেতর কেমন লাগত ।
ইচ্ছে হতো সারাক্ষন তার সাথে থাকি ।
সেবার থার্টি ফার্স্ট নাইটে দুজন একসাথে ঘুরছি ।
হথাত সবার সামনে বসে সে আমাকে প্রপোজ করে ।
আমি খুশিতে আত্মহারা ।
আমিও ওকে হ্যাঁ বলে দিই ।
শুরু হয় আমাদের ভালোবাসার কাহিনী ।

একটু একটু ভালোবাসা । কিছু অভিযোগ । রাগ । খুনসুটি । এসব নিয়েই দিন কাটে আমার আর তার ।
এর মাঝে অনেকেই তাকে নিয়ে আমার কাছে অনেক কথা বলত ।
কিন্তু আমি কারো কথাই বিশ্বাস করতাম না ।
ভাবতাম সবাই আমার কাছে ওর নামে মিথ্যে কথা বলছে ।
আমাদের ভালোবাসার সম্পর্ক টানা এক বছর চলে ।
এর মাঝে একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠলাম ।
সকালে উঠেই প্রিন্স কে মেসেজ করা আমার অভ্যাস ।
সেদিনও তাই করার জন্য সেল ফোন হাতে নিলাম ।
দেখলাম একটা টেক্সট মেসেজ আর একটা এম এম এস এসেছে ।
এম এম এস টা দেখেই আমার মাথা ঘুরে গেল ।
কারণ আমি দেখলাম প্রিন্স একটা ছেলে কে কিস করছে ।
আমার মন খুব খারাপ হয়ে গেল ।
খুব কান্না পেল ।
আমি সেদিন ওকে কিছুই জানাই নি ।
সেদিন সন্ধ্যায় আমরা দুজনে আমাদের এক বছর পূর্তি সেলিব্রেট করলাম ।
ওকে ছবির কথা জিজ্ঞেস করতেই ও সব স্বীকার করে নিল ।
প্রিন্স আমাকে আরও বলল, আমি ছাড়াও ওর জীবনে আরও ৪-৫ জন ছেলে আছে ।
আমি সাথে সাথে ওর বাসা থেকে এক ছুটে বের হয়ে আসলাম ।
ওষুধের দোকান থেকে অনেকগুলো ঘুমের ওষুধ কিনলাম ।
বাসায় এসে দরজা বন্ধ করে খুব কান্না করলাম ।
ভাবছিলাম এতদিন আমি কাকে লাভ করছিলাম ।
এক সাথে সবগুলো ঘুমের ওষুধ খেয়ে ফেললাম ।
আমার চোখ অন্ধকার হয়ে আসল ।
২ দিন পর ঘুম ভাঙল আমার ।
দেখতে পেলাম আমি হসপিটালে ।
পাশে আমার ফেমিলির লোকজন দাঁড়িয়ে আছে ।
লজ্জায় আমি মুখ দেখাতে পারছিলাম না।
সুস্থ হতে আমার বেশ কয়েক সপ্তাহ লাগল ।
এর কিছুদিন পর বাবা কে বললাম আমি আর রাজশাহীতে থাকব না ।
কারণ এখানে থাকলে প্রতি মুহূর্তে ওর কথা মনে হবে ।
এখানকার প্রতিটা জায়গায় ওর আমার ছোঁয়া আছে ।
বাবা মা আমাকে আমার মামার বাসায় পাঠিয়ে দিলেন ঢাকায় ।
এরপর থেকেই নিজেকে গুটিয়ে নিলাম ।
এখনও আমি একা ।
মাঝে মাঝে যখন খুব বেশি মন খারাপ লাগে তখন রাতের আকাশ দেখি ।
আমার নিঃসঙ্গতার সাথী করে নিই ওদের ।
আমি আজও খুঁজে পাইনি আমার কি দোষ ছিল ?
কেন আমি এতো বড় প্রতারনার শিকার হলাম ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s