ভালবাসার টান


আমি রাজ ।
প্রায় ২ বছর আগে আমার ব্রেক হয় ।
এরপর থেকেই আমি যেন কেমন হয়ে গেলাম ।
যখন দেখতাম কোন গে কাপল আমার সামনে দিয়ে হেটে যাচ্ছে তখন খুব খারাপ লাগত ।
মনে মনে ভাবতাম আমার সাথে কেন এমন হল ?
আমার চোখ জলে ছলছল করে উঠত ।
বুকের ভেতর একটা ব্যথা টের পেতাম ।
এই কারনে নিজেকে ধীরে ধীরে গুটিয়ে নিতে থাকি । কাজ ছাড়া খুব একটা বাসার বাইরে যেতাম না ।
বাসায় সবসময় মন মরা হয়ে বসে থাকতাম ।
মাঝে মাঝে খুব মরে যেতে ইচ্ছে হত ।

একদিন কি মনে করে ফেসবুকের পুরনো আইডিটা নতুন করে খুললাম ।
২-৩ দিন গেল । সবার সাথে হাই হ্যালো বলি ।
স্ট্যাটাস দিই ।
নিজের কষ্ট একটু একটু ভুলতে লাগলাম ।
অনেকের সাথেই চ্যাট হত ।
এভাবেই একদিন লন্ডন প্রবাসী একজন বড় ভাইয়ার সাথে পরিচিত হলাম ।
উনার নাম জানতে পারলাম রণ ।
একদিন কথায় কথায় রণ ভাইয়া আমাকে জিজ্ঞেস করল, তোমার বয় ফ্রেন্ড নাই ?
আমি বললাম, না ।
আমি তখন রণ ভাইয়াকে আমার ব্রেক আপ হবার সব কাহিনী খুলে বললাম ।
রণ ভাইয়া সব শুনে খুব দুঃখ প্রকাশ করল । আমাকে বলল, কিছু মনে না করলে আমি কি তোমার নম্বরটা পেতে পারি ?
আমি বললাম, অবশ্যই ।
নম্বর দেয়ার সাথে সাথে রণ ভাইয়া আমাকে কল দিল ।
সে নানা ভাবে আমাকে সান্ত্বনা দিতে চেষ্টা করছিল ।
রণ ভাইয়া বলল, দেখ রাজ । নিজেকে এভাবে গুটিয়ে ফেলে আর কষ্ট পেয়ে কি লাভ বল ? সামনে তোমার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ । এভাবে নিজেকে শেষ কর না ।
আমি কিছু বলি না ।
রণ ভাইয়া বলে, একটা কথা বলি । রাখবে ?
আমি বললাম, কি ?
রণ ভাইয়া বলল, কাল থেকে আবার আগের মত ঘুরবে, সবার সাথে মিশবে । তাহলে দেখবে তোমার খারাপ লাগাটা কমবে ।

আমি যেন রণ ভাইয়ার কাছে ছোট বাবু হয়ে গিয়েছি ।
ভাইয়ার কথা মন্ত্র মুগ্ধের মত শুনতে লাগলাম ।
এরপর থেকেই রণ ভাইয়া আমাকে দিনে ৫-৬ বার ফোন দিত ।
আমি নতুন করে বেঁচে থাকতে শিখি ।
রণ ভাইয়া আমাকে স্বপ্ন দেখায় । নতুন করে পথ চলতে শেখায় ।
আমার মাঝে ভাললাগার ভালবাসার বীজ বুনে ।
যাই হোক । সব ভালই যাচ্ছিল ।

একদিন রাতে চ্যাট করছি রণ ভাইয়ার সাথে ।
কথায় কথায় তার সাথে আমার কথা কাটাকাটি হয় । দুজনের মান অভিমান হলে যেমন হয় আর কি ।
রণ ভাইয়া অনেক রেগে যায় । আমাকে বলে, তোমাকে আমার ফ্রেন্ড লিস্ট থেকে বাদ দিয়ে দিব ।
আমি এই কথা শুনার পর খুব ভেঙ্গে পরি । সাথে সাথে কান্না শুরু করে দিই ।
আমি তখন বুঝতে পারি আমি আসলে ওকে মনে মনে কতটা ভালবেসে ফেলেছি । ও আমার মনের কতটা জুড়ে আছে সেটাও টের পাই ।
যাই হোক । সেই রাতে সারা রাত ঘুমাই নি ।
পরদিন আমি আর থাকতে পারি না ।
রণ ভাইয়া ফোন করতেই আমি হাউ মাউ করে কেঁদে বলি, জান । আমি তোমায় ভালবাসি ।
রণ ভাইয়াও ফোনের ওপ্রান্ত থেকে বলে , আমিও তোমাকে অনেক ভালবাসি রাজ ।
এরপর থেকে আমরা একজন আরেকজন কে প্রচণ্ড ভালবাসতে শুরু করেছি ।
ও আমার নাম দিয়েছে “সোনা বাচ্চা” । ও যখন আমাকে এই নামে ডাকে আমি তখন পাগল হয়ে যাই । আমি বুঝতে পারি ও আমাকে কতটা লাভ করে ।
আমিও ওকে “সাদা খরগোশ” বলে ডাকি ।
ও লন্ডন থাকে । তারপরেও রোজ ৫-৬ বার আমাকে ফোন করে আমার সাথে কথা বলে । আমি খেলাম কি না খেলাম সেসব খোজ খবর নেয় ।
একবার হলেও স্কাইপি তে চ্যাট করে ।
একদিন সে আমাকে বলে, “ সোনা বাচ্চা” আমি তোমাকে বিয়ে করতে চাই ।
আমি এই কথা শুনে অবাক হই । বলি, তুমি কি পাগল হইস ।
ও হাসে , বলে, লন্ডনে সমকামি বিয়ে কোন ব্যপারই না ।
রণ আমার জন্য লন্ডনে যাবার সব ব্যবস্থা করছে ।
আমি হয়ত ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারী তে ওখানে চলে যাব ।
মাঝে মাঝে আমার বিশ্বাস হয় না ।
নিজেকে খুব ভাগ্যবান মনে হয় এই ভেবে যে স্রস্টা ওর মত কাওকে আমার জন্য পাঠিয়েছেন ।
ওর ভালবাসা পেয়ে আমি ধন্য । জীবনের কাছে আমার আর চাওয়া পাওয়া নেই ।
আমি চাই সারাজীবন এভাবেই ওর “সোনা বাচ্চা” হয়ে থাকতে ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s